সন্ত্রাসী হামলায় মসজিদ বন্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রিয়া

সন্ত্রাসী হামলায় মসজিদ বন্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রিয়া

অনলাইন ডেস্ক: সম্প্রতি অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় এক সন্ত্রাসী হামলার প্রেক্ষিতে এবার দেশটির মসজিদকে ‘টার্গেট’ করছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে ভিয়েনায় একটি মসজিদ বন্ধ করতে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। সামনের দিনগুলোতে আরো মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে বলে আভাস দেওয়া হয়েছে।

অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার একটি মসজিদ,অস্ট্রিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে শুক্রবার এ তথ্য জানানো হয়েছে বলে খবর দিয়েছে আলজাজিরা।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার এবং ইন্টিগ্রেশন মন্ত্রী সুসান রবাব শিগগিরই যৌথভাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য জানাবেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সোমবার ভিয়েনায় যে ভয়াবহ হামলার ঘটনা ঘটেছে, তার কারণে জাতীয় নিরাপত্তা হুমকি তৈরি হওয়ায় একটি মসজিদ বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে আরো মসজিদ বন্ধের ঘোষণা আসতে পারে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

সোমবারের ওই হামলায় চার জন নিহত হয়। অস্ট্রিয়ায় গত কয়েক দশকে এটি ভয়াবহ হামলা। ওই ঘটনায় সন্দেহজনক এক যুবক পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে। ২০ বছর বয়সী কুজতিম ফেজ্জুলাই নামের ওই যুবক অস্ট্রিয়ান মেসিডোনিয়ান।

এদিকে, মসজিদ বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে অস্ট্রিয়ায় সরকারিভাবে স্বীকৃত ইসলাম ধর্ম সংক্রান্ত সম্প্রদায়।

এক বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, ‘সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার পর আমরা একটি মসজিদ বন্ধ করতে যাচ্ছি।’

ইসলামিক রিলিজিয়াস কমিউনিটির বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, ‘ধর্মীয় মতবাদ এবং এ সংক্রান্ত গঠনতন্ত্রের নিয়ম ভঙ্গ করার’ তথ্য পাওয়ার পরই মসজিদটি বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

অস্ট্রিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার বলেছেন, দেশটিতে প্রচলিত আইনের শাসনের সুযোগ যারা নিতে চেষ্টা করে, তাদের বিরুদ্ধে মসজিদ বন্ধের সিদ্ধান্ত একটি ‘গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ’।

উল্লেখ্য, ওই হামলার দায় স্বীকার করেছে কুখ্যাত সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএস। নিহত সন্দেহভাজন এর আগে সিরিয়ায় আইএসে যোগ দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়। পরে ডিসেম্বরে সে কারাগার থেকে ছাড়া পায়।


একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে